Skip to content

স্থিতিস্থাপকতা (Elasticity) কাকে বলে? | পীড়ন কি | বিকৃতি কি

স্থিতিস্থাপকতা কাকে বলে

আমরা আজ আলোচনা করবো পদার্থবিজ্ঞানের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সম্পর্কে, স্থিতিস্থাপকতা সম্পর্কে, জানবো স্থিতিস্থাপকতা কি, পীড়ন কি, বিকৃতি কি, তাদের একক ও মাত্রা সম্পর্কে।

স্থিতিস্থাপকতা কাকে বলে?

স্থিতিস্থাপকতা (Elasticity)= যে সহজাত ধর্মের জন্য কোনো পদার্থ বাইরে থেকে প্রযুক্ত বল বা দ্বন্দ্বের ক্রিয়ায় তার আকার ও আয়তনের বা উভয়েরই পরিবর্তনের প্রচেষ্টাকে বাধা দেয় এবং ওই প্রযুক্ত বাহ্যিক বল অপসারিত হলে বস্তু তার পূর্বের আকার ও আয়তন ফিরে পায়, তাকে স্থিতিস্থাপকতা বলে

উদাহরণ : একটি রবারের বলকে হাতে রেখে সুষমভাবে চাপ দিলে সেটি আকৃতিতে গোলাকার থাকলেও আয়তনে সংকুচিত হয়। চাপ সরিয়ে নিলে বলটি তার পূর্বের আয়তন ফিরে পায়।

**বিশেষ দ্রষ্টব্য : কোনো বস্তুর ওপর দুটি ভিন্ন বিন্দুতে একজোড়া সমান বল বিপরীত অভিমুখে ক্রিয়াশীল হলে ওই বল দুটির যৌথ প্রভাবে বস্তুটির মধ্যে কোনো রৈখিক গতি সৃষ্টি না হয়ে বিশুদ্ধ ঘূর্ণন গতি উৎপন্ন হয়। এই বল জোড়াকে দ্বন্দ্ব (Couple) বলা হয়।

স্থিতিস্থাপকতা নিম্নলিখিত বিষয়গুলির ওপর নির্ভর করে:

অপদ্রব্যের প্রভাব : কোনো ধাতুর সঙ্গে অপদ্রব্য মিশিয়ে দিলে ধাতুটির স্থিতিস্থাপকতা পরিবর্তিত হয়।

প্রযুক্ত বলের প্রভাব : কোনো ধাতুকে বল প্রয়োগ করে বারবার বিকৃত করলে ধাতুটির স্থিতিস্থাপকতা কমে যায়।

উষ্ণতা প্রভাব : সাধারণত উষ্ণতা বাড়লে কোনো পদার্থের স্থিতিস্থাপকতা কমে যায় এবং উন্নতা কমলে স্থিতিস্থাপকতা বেড়ে যায় (ব্যতিক্রম — ইনভার, এর স্থিতিস্থাপকতা উন্নতার সঙ্গে পরিবর্তিত হয় না)।

পদার্থের অবস্থা : পদার্থের ভৌত অবস্থার ওপর তার স্থিতিস্থাপক আচরণ প্রদর্শনের সামর্থ্য সরাসরি নির্ভর করে। কঠিন পদার্থের ক্ষেত্রে এই সামর্থ্য সব থেকে বেশি। কারণ — দৈর্ঘ্য , আকৃতি , আয়তন ইত্যাদি বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের মান এই অবস্থায় নির্দিষ্ট থাকে। তরল বা গ্যাসের স্থিতিস্থাপকতা তুলনামূলকভাবে কম।

****স্থিতিস্থাপক সীমা (Elastic limit) : দৈনন্দিন অভিজ্ঞতায় দেখা যায় যে, প্রযুক্ত বাহ্যিক বলের একটি নির্দিষ্ট ঊর্ধ্বসীমা পর্যন্ত প্রতিটি বস্তু পূর্ণ স্থিতিস্থাপক বস্তুর তুল্য আচরণ করে। অর্থাৎ, বিকৃতি উৎপাদনকারী বল অপসারিত হলে বস্তুটি তার নিজস্ব আকার ও আয়তন পূর্ণমাত্রায় ফিরে পেতে সমর্থ হয়। প্রযুক্ত বলের এই সীমাস্থ মানকে বস্তুর উপাদানের স্থিতিস্থাপক সীমা বলে।

আরও পড়ুন:-

বিকৃতি কাকে বলে?

বিকৃতি (Strain) : বাহ্যিক বল বা দ্বন্দ্বের ক্রিয়ায় কোনো বস্তুর বিভিন্ন অংশের মধ্যে আপেক্ষিক সরণ ঘটে। ফলে, বস্তুটির আকার বা আয়তনের পরিবর্তন হয়। প্রাথমিক মানের তুলনায় বস্তুর দৈর্ঘ্য, আয়তন বা আকৃতির যে আনুপাতিক পরিবর্তন ঘটে, তাকে বিকৃতি বলা হয়।

সুতরাং , বিকৃতি = আকার বা আকৃতির পরিবর্তন/প্রাথমিক আকার বা আকৃতি

সমজাতীয় রাশির অনুপাত হওয়ায় বিকৃতি সর্বদা মাত্রাশূন্য তথা এককবিহীন রাশি।

বিকৃতির মাত্রীয় সংকেত – [ M° L° T° ]

বিভিন্ন ধরনের বিকৃতি : দৈর্ঘ্য , আয়তন বা আকৃতির পরিবর্তনের ভিন্নতা অনুযায়ী বিকৃতি তিনপ্রকার হয়ে থাকে – অনুদৈর্ঘ্য বিকৃতি, আয়তন বিকৃতি, কৃন্তন বিকৃতি।

  • অনুদৈর্ঘ্য বিকৃতি (Longitudinal strain) : বাহ্যিক বল বা টানের প্রভাবে কোনো বস্তুর একক দৈর্ঘ্যে যে দৈর্ঘ্য পরিবর্তন সংঘটিত হয় , তাকে অনুদৈর্ঘ্য বিকৃতি বলে ।
  • আয়তন বিকৃতি (Volume strain) : বাহ্যিক বলের ক্রিয়ায় কোনো বস্তুর একক আয়তনে সৃষ্ট আয়তন পরিবর্তনকে আয়তন বিকৃতি বলা হয।
  • কৃত্তন বিকৃতি ( Shearing strain ) : বাহ্যিক বলের ক্রিয়ায় আয়তন অপরিবর্তিত থেকে বস্তুর শুধুমাত্র আকৃতির পরিবর্তন ঘটলে সংশ্লিষ্ট পরিবর্তনকে মোচড় বা কৃন্তন বিকৃতি বলা হয় ।

পীড়ন কাকে বলে?

পীড়ন (Stress) : প্রতিমিত বাহ্যিক বলের ক্রিয়ায় কোনো বস্তু বিকৃত হলে স্থিতিস্থাপকতা ধর্মের কারণে বস্তুটির মধ্যে একটি অভ্যন্তরীণ প্রতিক্রিয়া বল উদ্ভূত হয়, যা বিকৃতি উৎপাদনের চেষ্টাকে প্রতিহত করতে চায়। বস্তুর প্রস্থচ্ছেদের প্রতি একক ক্ষেত্রফলে সৃষ্ট অভ্যন্তরীণ প্রতিক্রিয়া বলকেই পীড়ন বলা হয়।

পীড়ন [ S ] = একক ক্ষেত্রফলে প্রযুক্ত বল =F/A

ক্রিয়া – প্রতিক্রিয়া সূত্র অনুযায়ী, বস্তুর অভ্যন্তরে সৃষ্ট এই প্রতিক্রিয়া বল মানগতভাবে প্রযুক্ত বাহ্যিক বলের সমান। তাই একক ক্ষেত্রফলে ক্রিয়াশীল বাহ্যিক বলের সাহায্যেই সাধারণত পীড়নের পরিমাপ করা হয়ে থাকে।

পীড়নের বিভিন্ন পদ্ধভিতে একক : CGS পদ্ধতিতে পীড়নের একক – ডাইন/সেমি2 । SI- তে পীড়নের একক নিউটন/মি2

পীড়নের মাত্রীয় সংকেত : ML-1T-2

covered Topics:- স্থিতিস্থাপকতা কাকে বলে?, elasticity কাকে বলে?, স্থিতিস্থাপকতা কোন কোন বিষয়ের উপর নির্ভর করে?, পীড়ন কাকে বলে?, বিকৃতি কাকে বলে,? পীড়নের একক, বিকৃতির একক, Image source- britanica.com

Share this

Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram

Related Posts

Comment us

1 thought on “স্থিতিস্থাপকতা (Elasticity) কাকে বলে? | পীড়ন কি | বিকৃতি কি”

  1. Pingback: হুকের সুত্র বিবৃতি ও ব্যাখ্যা কর | ইয়ং গুণাঙ্ক কি – Studious

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Facebook Page