Skip to content

জনন কাকে বলে | জননের প্রয়োজনীয়তা কি | জননের প্রকারভেদ

জনন কাকে বলে জননের প্রয়োজনীয়তা

জনন জীবের অন্যতম প্রধান বৈশিষ্ট্য। প্রতিটি জীব জনন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নিজের অস্তিত্বকে অপত্যের মধ্যে বাঁচিয়ে রেখে বংশরক্ষা এবং বংশবিস্তার করে। এই বংশবিস্তারের মাধ্যমে জীবনের প্রবাহ অক্ষুণ্ন থাকে। যে জীব থেকে অপত্য জীব সৃষ্টি হয় তাকে জনিতৃ জীব এবং জনিতৃ জীব থেকে সৃষ্ট জীবকে অপত্য জীব বলে। জনিতৃ জীব থেকে অপত্য জীব সৃষ্টি হওয়ার পদ্ধতিকে জনন (Reproduction) বলে।

জননের সংজ্ঞা ( Definition ) : যে জৈবিক পদ্ধতিতে জীব নিজ সত্তা ও আকৃতিবিশিষ্ট অপত্য জীব সৃষ্টি করে এবং সংখ্যা বৃদ্ধির দ্বারা নিজস্ব বংশধারাকে অক্ষুণ্ণ রাখে, তাকে জনন বা রিপ্রোডাকশন বলে।

জননের প্রয়োজনীয়তা বা গুরুত্ব [Importance of Reproduction]

অস্তিত্ব বজায় রাখা : জীবজগৎ জনন পদ্ধতির দ্বারা বংশধর উৎপত্তির মাধ্যমে নিজেদের অস্তিত্ব বজায় রাখে।

সংখ্যা বৃদ্ধি : জননের মাধ্যমে জীব নিজ প্রজাতির সংখ্যা বৃদ্ধি করে।

ধারাবাহিকতা বজায় রাখা : জননের মাধ্যমে জীব তার বংশানুক্রমিক ধারাকে বাঁচিয়ে রাখে।

জীবজগতে ভারসাম্য রক্ষা : জননের ফলে জীবের মৃত্যুজনিত সংখ্যা হ্রাস পূরণ করে, ফলে পৃথিবীতে জীবজগতের ভারসাম্য বজায় থাকে।

অভিব্যক্তিতে সহায়তা : যৌন জননের মাধ্যমে অপত্য বংশধরদের মধ্যে নানা বৈশিষ্ট্যের সমন্বয় ঘটে , যার ফলে প্রজাতির মধ্যে প্রকরণ বা ভেদ ( variation ) পরিলক্ষিত হয়। এই প্রকরণ বা ভেদ জৈব অভিব্যক্তিকে সহায়তা করে।

পরিব্যক্তির উদ্ভব : যৌন জননের সময় বংশগতি পদার্থের পরিব্যক্তি বা মিউটেশন ঘটার সম্ভাবনা থাকে , যার ফলে নতুন প্রজাতির উদ্ভব ঘটে।

সংকর জীব সৃষ্টি : অন্তঃপ্রজাতিক যৌন জননের মিলনে উৎপন্ন সংকর জীব সহজে পরিবর্তিত পরিবেশে নিজেকে মানিয়ে নিতে সক্ষম।

প্রকরণ : জনন জীবের মধ্যে ভেদ বা প্রকরণের ( variation ) সূচনা করে। প্রয়োজনীয় প্রকরণ জীবের অভিযোজন ও অভিব্যক্তির জন্য আবশ্যক।

 

আরও পড়ুন:-

 

জননের সাধারণ বৈশিষ্ট্যাবলি [General Features of Reproduction]

1) জননের কোশতত্ত্বগত ভিত্তি হল কোশবিভাজন। সাধারণত মাইটোসিসের মাধ্যমে অঙ্গজ ও অযৌন জনন এবং মিয়োসিসের মাধ্যমে যৌন জনন সম্পন্ন হয়।

2) অঙ্গজ জননের ক্ষেত্রে জীবদেহের একাংশ সরাসরি বা পরিবর্তিত রূপে বংশবৃদ্ধি করে। অযৌন জনন সচরাচর রেণুর মাধ্যমে এবং যৌন জনন গ্যামেট উৎপাদনের সাহায্যে সম্পন্ন হয়।

3) জননের আণবিক ভিত্তি হল DNA অণুর প্রতিলিপি গঠন( Replication )। উদ্ভিদ ভাইরাসের ক্ষেত্রে RNA অণুর প্রতিলিপি গঠনের মাধ্যমে বংশবৃদ্ধি ঘটে।

জননের প্রকারভেদ [ lTypes of Reproduction]

জনন প্রধানত দু – প্রকার , যথা —

1) অযৌন জনন (asexual reproduction),

2) যৌন জনন (sexual reproduction)।

এ ছাড়া উদ্ভিদের ক্ষেত্রে অঙ্গজ জনন এবং উদ্ভিদ ও প্রাণীদের অপুংজনি ( parthenogenesis ) নামক বিশেষ ধরনের জনন প্রjক্রিয়া দেখা যায় ।

Share this

Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram

Related Posts

Comment us

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Facebook Page